শাইখ আতিয়াতুল্লাহ আল্লাহ তাঁকে রক্ষা করুক

একটি ভিডিও বার্তার বাংলা অনুবাদ

১০৪ ৯০] ০৯০ এএ

অবশ্যই সকল প্রশংসা আল্লাহর জন্য।আমরা আল্লাহর প্রশংসা করি, তাঁর সাহায্য কামনা করি এবং তাঁর ক্ষমা কামনা করি। আমরা আল্লাহর আশ্রয় কামনা করি শয়তান থেকে এবং আমদের কর্মকান্ডগ্তলোর শয়তানী ফলাফলগুলো থেকে।আল্লাহ যাকে পথপ্রদর্শন করেন তাকে কেউ পথন্রষ্ঠ করতে পারবে না এবং আল্লাহ যাকে পথত্রষ্ঠ করেন তাকে কেউ পথপ্রদর্শন করতে পারবে না।আমি এই সাক্ষী দিচ্ছি যে আল্লাহ ব্যতীত আনুগত্যের যোগ্য আর কেউ নেই এবং আমি এই সাক্ষী দিচ্ছি যে মুহাম্মদ তাঁর গোলাম এবং বার্তাবাহক, শান্তি এবং দোয়া তাঁর উপর, তাঁর পরিবারের উপর, তাঁর সাথীদের উপর এবং প্রতিফলন দিবসের আগ পর্যন্ত তাঁর অনুসারীদের উপর।

শুরঃ

আমার মুসলিম ভাইয়েরা এবং বোনেরা, মুজাহিদদের পক্ষ থেকে সম্মানিত এবং বিজয়ী মুসলিম উম্মাহকে আসসলামুয়ালাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু।

আপনাদেরকে এই ছোট বার্তার দিকে দৃষ্টি আকর্ষনের মূল কারন এই হচ্ছে যে , আমরা এবং অন্যান্যরা আমাদের শক্রএবং মিডিয়া থেকে প্রায় সময় এইটি শুনতে পাই , যেইটি জিহাদি আন্দোলনপগতলোকে অভিযুক্ত করছে মুসলমানদের লক্ষ্য করে আক্রমন করার ব্যাপারে, মুজাহিদদের ব্যাপারে চিত্রিত করছে কোন কারন ছাড়াই রক্তপাত ঘটানোর জন্য অস্ত্রবহনকারী হত্যাকারীর দল হিসেবে এবং অস্ত্র লুষ্ঠনকারী হিসেবে, এবং কোন মহৎ কারন, লক্ষ্য অথবা রাজনৈতিক পরিকল্পনা নেই এবং একই ধরনের অন্যান্য অভিযোগে অভিযুক্ত করছে। অবশ্যই তারা মিথ্যাবাদী!

ক্রসেডার বাহিনীর ধূর্ত ষড়যন্ত্রগুলো , যারা অপমানজনকভাবে আফগানিস্তান হতে প্রত্যাহার হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে এবং প্রত্যাখ্যান হয়েছে - যারা সংযোজন ঘটাচ্ছে দূর্নীতির বিস্তার, শস্য এবং পশুপাখি ধ্বংস করার মাধ্যমে অনুসরন করছে “পৃথিবী জালিয়ে দেয়ার” নীতি , না তারা মানবতার প্রতি উদ্বেগ দেখাচ্ছে , না তারা চিন্তা করতেছে এর প্রভাব সম্পর্কে দিয়েছে, এই পলায়নরত শত্রত্া সন্দহজনক আক্রমন পরিচালনা করতেছে যেগুলোর লক্ষ্য মুসলিম বাজারগুলো , এমনকি কিছু মসজিদ এবং অন্যন্য জায়গাগ্ডলো।

এই অভিযুক্তগুলোর পরিপ্রেক্ষিতে আমরা বলতে চাই , আমাদেরকে আল্লাহর সামনে প্রত্যেকটি কাজের জন্য জবাবদিহি চাই যে মসজিদ, বাজার, পরিবহন পথ অথবা অন্যান্য জায়গায় মুসলমানদের লক্ষ্য করে করা যে কোন আক্রমন করার ব্যপারে আমরা নিজেদেরকে নির্দোষ হওয়ার ব্যপারে পুনরাবৃত্তি করছি।

আল কায়েদা তাদের নেতৃত্ব, বিবৃতি এবং ভাষ্যকারদের মাধ্যমে বিভিন্ন ঘটনার এই ইস্যুগ্তলোর উপর পুনরায় জোর দিচ্ছে এবং আমরা পরিষ্কারভাবে দেখিয়ে দিচ্ছি এই কাজে আমাদের পদ্ধতি, আমাদের প্রক্রিয়াগ্তলো এবং আমাদের আহবানের মাধ্যম

আমরা পরিষ্কার করেছি যে আমরা আমাদের ইসলামিক জনগনকে সেই জনগনের মত যাদের অন্য কোন পছন্দ নেই কিন্তু আমরা তাদের জন্য এইটিও বিবেচনা করব না অথবা আমাদের নিজেদেরকে যেকোন ধরনের ঘাটতি পড়া থেকে মুক্ত মনে করব না।বরং বিষয়গুলো সবচেয়ে স্পষ্ট বৈশিষ্ট্যগ্তলোর উৎস যেটি কিনা নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর নির্ভর করে।

আমরা এইটি বিশ্বাস করি যে আমাদের উম্মাহর জনগন - যারা মুরতাদ জালিম শাসক; বিশ্বাসঘাতক , জড় জাগতিক শাসনব্যবস্থা দ্বারা শাসিত হচ্ছে যারা শব্রবাহিনীর চামচা এবং পশ্চিমাদের সহযোগী _ আমাদের প্রত্যেক সকল সামর্থ্যবান মসলমানের উপর এইটি আবশ্যকঃ তাদেরকে রক্ষা করা, মুক্ত করা, পথপ্রদর্শন করা এবং পুনরায় সম্মান এবং মহানুভবতা গঠনের পরবর্তী ধাপের জন্য নেতৃতৃ দান করা, অযৌক্তিক জীবনহানি অথবা তাদের সম্পদের লুষ্ঠন অথবা তাদের ক্ষতি, যন্ত্রনা এবং বিপর্যয়কে বৃদ্ধি করো না।

আমরা ব্যাখ্যা করছি যে আমরা আমাদের মালিকের আইন, সর্বময় ক্ষমতার নির্দেশিকা মেনে চলছি , তিনি মানুষকে অন্যায়ভাবে হত্যা করাকে নিষিদ্ধ করেছেন, তাসত্েও সীমালজ্ঘনের মাত্রা এবং শত্রবাহিনীর উৎপীড়ন বাড়ছে, এতে কিছু যায় আসে না কত পরিমান ঘৃনা তৈরি হয়েছে অথবা যুদ্ধের মধ্যে কত পরিমান প্রতিশোধ গ্রহন প্রয়োজন হয়ে উঠেছে। আল্লাহর ধর্ম, সর্বময় ক্ষমতা সবচেয়ে বেশি সুউচ্চ এবং অতিমূল্যবান। আল্লাহর সন্তুষ্টি এবং সম্মান অর্জন করা অধিক গুরুত্পূর্ন।.

এভাবে আমরা এই ধরনের যেকোন কাজ থেকে নিজেদেরকে নির্দোষ দাবি করছি, এইটি কোন বিষয় নয় যে কে এইটি সংঘটিত করেছিল অথবা কোথায় এইটি সংঘটিত হয়েছিল, এই ধরনের লোকগুলো শক্রবাহিনীর অপরাধী চক্রের সাথে তযুক্ত , কাফেরদের ভাড়াটে নিরাপত্তা এজেন্সীগুলোর সাথে সংযুক্ত, আল্লাহ তাদের অপমানিত করুক অথবা এই ধরনের লোক যারা মুসলিম হিসেবে দাবি করছে অথবা মুজাহিদদের সাথে সংযুক্ত বলে দাবি করছে কিন্ত কাজগুলো করেছিল অসতর্কভাবে অথবা অবহেলার মাধ্যমে।

এই কাজগুলোর ব্যপারে আমরা সরাসরি ঘোষনা করছি যে এই কাজগুলো পৃথিবীর মধ্যে ক্ষতি এবং দূষন বৃদ্ধি করছে যেইটি কিনা আল্লাহ নিষিদ্ধ করেছেন

"85০০৪ “অবশ্যই আল্লাহ পাপ এবং অসততাকে অপছন্দ করেন”

[আল্লাহ আরো বলেন:] . 14৮৩১৪৭৪

০. আল্লাহ তাদেরকে পছন্দ করেন না যারা অসততা বৃদ্ধি করে এবং ধবংস করে”

আমাদের জিহাদের একটি আইনত এবং অনুগ্রহশীল সুউচ্চ এবং সুমহান লক্ষ্য আছে - যেইটির হচ্ছে ন্যায়পরায়নতা, ক্ষমা, সদগুন, মহতু,শ্রদ্ধা, সম্মান, সারিবদ্ধ হওয়া এবং সফলতা - এই সমস্ত কিছুর সারসংক্ষেপ সর্বশক্তিমান আল্লাহর সন্তুষ্টির মধ্যে থেকে এবং তাঁর পাশে তাঁর ধর্মের একজন সাহায্যকারীরূপে থাকা , তিনি হচ্ছেন সর্বময়ক্ষমতার অধিকারী।

আমরা আল্লাহর শব্দকে উত্তোলন করছি এবং আমরা তাঁর ধর্মকে সাহায্য করছি এবং এইটিকে রক্ষা করছি আমরা সত্যের বিজয় এবং অত্যাচার এবং আগ্রাসন থেকে মুক্তি কামনা করছি , আমরা জনগন এবং ভূমির স্বাধীনতা কামনা করছি এবং জনগনের প্রতি আমরা দয়া এবং তাদের জন্য কল্যান বয়ে আনব।

আমরা সকল অঞ্চলের মুজাহিদদেরকে স্মরন করিয়ে দিতে চাই , আল্লাহ তাদেরকে সফলতা প্রাদান করুক, মুসলিম রক্তের পবিত্রতা সম্পর্কে জ্ঞানের জন্য জোর দেওয়ার ব্যাপারে গুরুত্ব দিচ্ছি এবং এইটির প্রচার প্রসারের ব্যাপারে গুরুত্ব দিচ্ছি , এই ব্যাপারে অধিক সতর্কতা গ্রহন করা আবশ্যক, ইহাকে রক্ষা এবং সংরক্ষন করতে হবে এবং অন্যায়ভাবে এর প্রবাহ

হওয়া থেকে ভয় করতে হবে। তাদের অবশ্যই বাধা দিতে হবে যারা মুসলিম রক্ত, সম্পদ এবং সম্মানের ব্যপারে অসতর্ক। যুদ্ধ এবং ইহার আবহমন্ডল , নিয়ন্ত্রনগুলো, মনোভাবগুলো এবং ঘৃনার মাধ্যমে শক্তিবৃদ্ধি করে অনধিকারচর্চা করা উচিত হবে না, এই বিষয়ে এবং অন্যান্য বিষয়ে সর্বময়ক্ষমতার অধিকারী আমাদের মালিকের আইনকে দৃঢ়ভাবে আঁকড়ে ধরতে হবে , তার দিকে আমাদের সকল দাসত্বের দিকে ঝুঁকে পড়াকে বাধা দেওয়া উচিত হবে না আমরা সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী আল্লাহর গোলাম এবং তাঁর সৈন্যবাহিনী। আমরা দেখাব আমাদের সকল আনুগত্য, সহিষ্ক্তা এবং নিশ্চয়তা মুহাম্মদ সন্লাল্লাহুআলাইহিওয়াসাল্লামের পথে।

এই বিষয়ের উপর বিশদভাবে বিস্তারিত না করে এই বার্তার মাধ্যমে স্মরন করিয়ে দেওয়া এবং পুনর্ব্যক্ত করার মাধ্যমে আমরা আমাদের অবস্থান পরিষ্কার করছি। আমাদের পবিত্র গ্রন্থের বিশুদ্ধ আইনের বিষয়ে মুসলমানদের কিছু অজানা নেই একজন বিশ্বাসীর জীবনের গুরুতর প্রসারের জন্য এইটি ব্যাখ্যা করার জন্য যথেষ্ঠ এবং এই রক্তের পবিত্রতা সম্পর্কে নবী সন্লাল্লাহুআলাইহিওয়াসাল্লাম বলেনঃ

4০90] ০০০ 0৯০05 ০৭ ০৩১1 4৮ “আল্লাহর কাছে সম্পূর্ন বিশ্ব বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া একজন মুসলমানের [অন্যায়ভাবে] মারা যাওয়ার চেয়ে কম গুরুতপূর্ন”

পৃথিবী বিলুপ্ত হয়ে যাবে এবং, আমরা এবং আমাদের প্রতিষ্ঠানগুলো,দলগুলো এবং পরিকল্পনাগুলোর অস্তিত্ব থেমে যাবে কিন্তু আমাদের হাত যেন মুসলিম রক্তের অন্যায় প্রবাহের কারন না হয়। এইটি পরিষ্কার এবং গুরুত্বপূর্ন বিষয়।

অধিকন্তু, আমি আমাদের মুজাহিদ ভাইদেরকে (যেখানেই তারা অবস্থান করুক আল্লাহ তাদেরকে সফলতা এবং সাহায্য করুক) কিছু গুরুত্বপূর্ন এবং বাস্তব কিছু পয়েন্টের উপর উপদেশ দিব,

১)প্রথমতঃ আমি তাদেরকে আহবান করব যেন তারা তাদের সামরিক দলগুলো অথবা শাখাগুলোকে বিস্ফোরক পদার্থের ব্যবহার নিষিদ্ধ করার জন্য অথবা অন্যভাবে বোঝানো যায় লক্ষ্যবস্ত হিসেবে এলাকাগুলোর মধ্যে , মসজিদের মধ্যে এবং এই ধরনের অন্যান্য জায়গাগুলোয় যেমন বাজারগুলো, ষ্েডিয়ামগ্ডলো এবং মুসলমানদের অন্যান্য জড়ো হওয়ার স্থানগুলোয় নিষিদ্ধ করার জন্য, এইটি কোন বিষয়না লক্ষ্যটা কি, এই কাজে শৃঙ্খলা রক্ষা করার মত সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে যেন ভুলের কারনে ক্ষতি না হয়।

২)দ্বিতীয়ত,আক্রমন যেগুলো তাতাররুসের শিরোনামে পড়ে অবশ্যই খুব শৃঙ্খলার সাথে করতে হবে।তারা অবশ্যই অংশগ্রহনকারীদেরকে অনেক বেশি মুক্তভাবে কাজ করা থেকে সাবধান করবে , তাদের জন্য বিশেষধরনের অবস্থার অনুমতি আছে।তারা জরুরি প্রয়োজনের ক্যাটাগরিতে পড়ে এবং এভাবে যত বেশি সম্ভব কড়া আনুগত্যের মধ্যে এইটি করতে হবে। এই ধরনের আক্রমন পরিচালনার আগে নেতৃত্বদের অবশ্যই অত্যন্ত কড়া আনুগত্যের মাধ্যমে নিরীক্ষা করতে হবে কোথায় শর্তগ্তলো পাওয়া যাচ্ছে এবং নিষিদ্ধ উপাদানগুলো অনুপস্থিথ , এভাবে শত্রদের উপর একটি বড় ধরনের বৈধ ক্ষতি প্রদান করা যায় এবং অন্যান্য সুযোগগুলো হয়ত দেখা দিবে না, এভাবে সাধারন অবস্থায় যার যার গুরুত্বপূর্ন লক্ষ্যগুলোতে আক্রমন করা যাবে না, এবং বুঝা যাচ্ছে লক্ষ্যতে আক্রমন করার জন্য এইটি হচ্ছ সঠিক বার্তা, এবং যদি আক্রমনগুলোতে ইহা অনুসরন না করা হয় তাহলে ফলাফল হিসেবে এইটি জিহাদের জন্য কিছু পরিষ্কার ক্ষতি হবে এবং এইটি শত্রবাহিনীকে আরামদায়কভাবে সামনে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ দিবে এবং সবদিকে ছড়িয়ে পড়বে যুদ্ধ , তাদের সামরিক উপস্থিতি এবং রাজ্য |

উপরের পয়েন্টটি তৃতীয় পয়েন্টের মাধ্যমে সম্পূর্ন হয়েছেঃ

৩)বিস্ফোরক সহকারে বিশেষ আক্রমনগুলোর ক্ষেত্রে তত্বাবধান হবে বিশেষ কমিটির সামরিকভাবে বিশেষজ্ঞ কাউকে

প্রতিনিধিরূপে প্রেরন করে বিশ্বাসযোগ্য ছাত্রদেরকে এই সম্পর্কে জ্ঞান প্রদান করা যে কিনা প্রত্যেকটি বিষয়ে এককভাবে পড়াশুনা করে সিদ্ধান্ত নেবে যেকোন ক্ষেত্রে অনুমতি প্রদানের জন্য এবং অথবা ইহা লক্ষ্য হিসেবে চালিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে অথবা অন্যকিছুর ক্ষেত্রে যেইটি আমরা আল কায়েদার মধ্যে করে থাকি এবং সকল প্রশংসা আল্লাহর জন্য।

৪) প্রত্যেক জায়গার মুজাহিদ নেতৃবৃন্দের অবশ্যই করনীয় দায়িত্ব হচ্ছে মুজাহিদদেরকে শিক্ষা দেওয়া, সাধারন জনসাধারনকে, শহীদি আক্রমন করতে যারা পথ খুঁজছে বিশেষভাবে তাদেরকে যত বেশি সম্ভব উপদেশ দেওয়া, তাদের বোঝানো উচিত যতক্ষন পর্যন্ত না তারা স্বস্তিপূর্ন না হয়, যারা এই ধরনের আক্রমনগুলো পরিচালনা করবে তাদেরকে মুজাহিদদের সিদ্ধান্ত সম্পর্কে জানা প্রয়োজন, অবশ্যই এই ধরনের কাজগুলো ইখলাস সহকারে আনুগত্যের মাধ্যমে পরিচালনা করতে হবে, এবং সম্পুর্নরপে প্রস্তুতি নিতে হবে সর্বশক্তিমান আল্লাহর সম্পূর্ন আনুগত্য করে তাঁর জীবনের মাধ্যমে আল্লাহর কথাকে উর্দ্ধে রাখার জন্য এবং কাফের বাহিনীকে প্রতিরোধ করে ধর্মের পতাকাকে উত্তোলন করবে। তাদের কখোনই সন্দেহযুক্ত লক্ষ্যের দিকে অগ্রগামী হওয়া উচিত হবে না অথবা এই ধরনের জায়গা যা জনগনকে বিভক্ত করবে অথবা বিতর্ক এবং পার্থক্য সৃষ্টির কারন হবে তাদের শুধু উচিত হবে সমস্ত জায়গার দিকে অগ্রগামী হওয়া যেইটি কিনা একশতভাগ নিশ্চিত এবং এই ধরনের আইনসম্মত লক্ষ্যবস্তুর জায়গাগুলো সম্পূর্ন স্বত্তিদায়ক হতে হবে এবং এই ধরনের আক্রমনগুলো আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করবে।

এইটি মুজাহিদ নেতৃবৃন্দের জন্য আবশ্যক যেইটি কিনা শহীদি আক্রমনের বিষয়ে সচেতনভাবে কাজ করবে। অবশ্যই তাদেরকে সন্দেহযুক্ত লক্ষ্যবস্তর বিষয়ে শক্তভাবে সতর্ক করতে হবে।

আরো হচ্ছে যদি শহীদি আক্রমনকারী যথাযথ নিরুপন,উপলব্ধি, এবং জ্ঞান ছাড়া সামনের দিকে নিজেকে অগ্রসর করে , সে কাজগুলো করেছে অবহেলা এবং নিন্দনীয়ভাবে; আল্লাহর কাছে তাকে জবাবদিহি করতে হবে এবং শহীদ হওয়ার পরিবর্তে তার জন্য শাস্তি অনুমোদন করা হবে এবং কে এর মাধ্যমে খুশী হবে? কত সংখ্যক লোক আছে যারা যুদ্ধের এই লাইনে মারা গেছে এবং আল্লাহ ভালো জানেন তাদের উদ্দেশ্য সম্পর্কে ? কত সংখ্যক লোক আছে যাদের ভালো ইচ্ছা আছে কিন্তু এইটিকে অর্জন করেনি?

মুজাহিদ তারা যারা তাদের সম্পদ, জীবন এবং আত্মাকে আল্লাহর পথে দেয় আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য। আমাদের ধর্ম হচ্ছে জ্ঞান, কাজ এবং উদ্দেশ্য; আমাদেরকে উপকারী জ্ঞান অর্জন করতে হবে এবং আমাদেরকে জনগনের উপলব্ধি অর্জন করতে হবে। আমাদেরকে ন্যায়নিষ্টভাবৈ কাজ করতে হবে এবং উদ্দেশ্যকে সঠিক করতে হবে।এবং সকল সফলতা আসবে আল্লাহ থেকে। হে আল্লাহ! আমাদের ধর্মীয় জীবনকে উন্নত করুন যেইটি আমাদের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন বিষয়। উন্নত করুন আমাদের ইহজাগতিক জীবনকে। উন্নত করুন আমাদের আখিরাতের জীবনকে যেইটি আমাদের শেষ প্রত্যাবর্তন।

এবং আমাদের সর্বশেষ দোয়া সকল প্রশংসা আল্লাহর জন্য যার অস্তিত্ব সবজায়গায়।

আসসালামুআলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু।